বাংলাদেশ শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

পবিত্র মাহে রমজানের ইবাদতের অভ্যাস যেন থাকে সারা বছর

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: এপ্রিল ১২, ২০২৪, ০৯:৩২ এএম

পবিত্র মাহে রমজানের ইবাদতের অভ্যাস যেন থাকে সারা বছর

রমজানে ইবাদতের অভ্যাস যেন থাকে সারা বছর

পবিত্র রমজান মাস শেষ। কেউ জানে না এ মহান মাস আবার  ফিরে আসবে কিনা। এই মাস পেরিয়ে গেছে। কিন্তু আমাদেরকে খোদাভীতির পথ দেখানো হয়েছে। এই মাস থেকে আমি কথা বলব কিভাবে মুমিনরা সারা বছর ধরে এই প্রক্রিয়া, তাকওয়া অর্জনের প্রক্রিয়া চালিয়ে যেতে পারে।

রোজা রাখো
রমজানের রোজা শেষ হলেও বাকি মাসগুলো নফল রোজায় ভরপুর। আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী রোজা রাখার চেষ্টা করা উচিত।

শাওয়াল মাসে ৬ দিন
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ যে ব্যক্তি রমজান মাসে রোজা রাখল সে শাওয়ার মাসে ছয়বার রোজা রাখল যেন সে সারা বছর রোজা রেখেছে। (সহীহ মুসলিমঃ ১১৬৪)

প্রায় প্রতি বৃহস্পতিবার এবং সোমবার
আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন: "সোম ও বৃহস্পতিবার, আপনার বান্দার আমল আল্লাহর দান।" অতএব, আমি আমার কর্মকে এমনভাবে উপস্থাপন করতে পছন্দ করি যেন আমি সে সময় রোজা রেখেছিলাম।

আরাফার দিনে রোজা রাখা
রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেনঃ আমি আল্লাহর কাছে আরাফার দিনে রোযা রাখার মাধ্যমে আমার বিগত এক বছরের এবং পরের বছরের গুনাহ মাফ করতে চাই। (সহীহ মুসলিম: 1162) তারা আশুরা ও শাবান মাসেও রোজা রাখে।

নফল নামাজের ধারাবাহিকতা
আমাদের রীতি হল রমজানে দীর্ঘ তারাবীহ নামায পড়া। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা এবং একসাথে অনেক রাকাত পড়া একটি উত্তম অভ্যাস। এই অভ্যাসটি সারা বছর ধরে রাখার চেষ্টা করুন। আমরা ঐতিহ্যগত প্রার্থনা মূল্য. প্রতিদিনের ফরজ নামাজ ও নফল নামাজ আদায় করুন। তাহজুদ নামাযের তাড়াহুড়া না করার জন্য বিশেষভাবে সতর্ক থাকুন। সুতরাং, ইশরাক, চাশত, তাহারত এবং মসজিদে তাহিয়া-উল-হান করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করুন।


জিকিরের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা
শরীফ হাদীসে বর্ণিত বিভিন্ন সময় ও মুহুর্তে নিয়মিত মাসনূনের দোয়া ও যিকির করা এবং সকাল-সন্ধ্যায় দোয়া ও জপমালা পাঠ করা এবং ফজিলত উল্লেখ করা। আল্লাহর কাছে বেশি বেশি প্রার্থনা করার অভ্যাস করুন। নামাজের অনেক ফজিলত রয়েছে। প্রার্থনাও একটি স্বতঃস্ফূর্ত সেবা। মহান আল্লাহ মুমিনদের বৈধ কর্তব্য অস্বীকার করেন না।
 

দাতব্যের ধারাবাহিকতা
যাকাত, সাদাকাতুল ফিতর এবং অন্যান্য দাতব্য কার্যক্রম রমজান মাসে বন্ধ হয়ে যায়, তবে এই কার্যক্রমের দরজা সারা বছর খোলা থাকে। যাকাত ও সাধারণ দান শুধু রমজানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। পুরো বছরই এর ঋতু এবং এটি সর্বদা একটি ভার্চুয়াল অনুশীলন। অতএব, আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী সারা বছর দান করা উচিত। রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ দান সম্পদকে কমিয়ে দেয় না।

কোরান পড়া চালিয়ে যান।
পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত একটি অত্যন্ত পুণ্য ও সম্মানের কাজ। নবী করিম পিলা। তিনি বলেন, যে ব্যক্তি কুরআনের একটি অক্ষর পাঠ করবে সে তার বিনিময়ে একটি নেকী পাবে। এই একটি ভাল কাজ দশটি নেক কাজের সমতুল্য বলে বিবেচিত হয়। আমি বলছি না যে আলিফ-লাম-মীম একটি অক্ষর। বরং ‘আলিফ’ একটি অক্ষর, ‘লাম’ একটি অক্ষর এবং ‘মীম’ একটি অক্ষর।
আসুন সারা বছর ভালো কাজ চালিয়ে যাই এবং অলসতা পরিহার করি। পাপ ছাড়া বেঁচে থাকার অভ্যাস গড়ে তুলুন। আল্লাহ আমাদের হেদায়েত করুন। আমীন।

 

 

 


 

Link copied!

সর্বশেষ :