বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

কোরবানির ঈদে জমজমাট মসলার বাজার, বেড়েছে দামও

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২৪, ০১:৩৪ পিএম

কোরবানির ঈদে জমজমাট মসলার বাজার, বেড়েছে দামও

কোরবানিকে ঘিরে অস্থির মসলার বাজার।

কোরবানির ঈদের বাকি হাতেগোনা মাত্র কয়েকদিন। চলছে শেষ সময়ের বেচাকেনা। মসলার দোকানগুলোতে বেড়েছে ভিড়। তবে দাম বেশি বলে অভিযোগ ক্রেতাদের।শুক্রবার (১৪ জুন) কেরানীগঞ্জের কালীগঞ্জ, জিনজিরা, রাজধানীর আগানগর ও রায়সাহেব বাজার এ চিত্র দেখা যায়।

কোরবানি ঈদের বাকি আর মাত্র তিন দিন । শেষ সময়ে জমে ওঠেছে পশু বেচাকেনা। সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মসলা কেনার ধুম। প্রতিটি দোকানেই বাড়ছে ভিড়।তবে মসলার দাম অনেক বেশি বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। তারা বলেন, ঈদের আগে ইচ্ছে করে মসলার দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন দোকানিরা।

আফজাল হোসেন নামে এক ক্রেতা বলেন,
বাজারে মসলার দাম অনেক চড়া। শেষ সময়ে সেটি আরও বেড়ে গেছে। এলাচ কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪ হাজার টাকার কাছাকাছি। অন্যান্য মসলার দামও বাড়তি।

রাজধানীর শ্যামবাজারের মসলা ব্যবসায়ী রাশেদ জানান, বাজারে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে এলাচের দাম। মানভেদে প্রতিকেজি এলাচ বিক্রি হচ্ছে ৩২০০-৪০০০ টাকা পর্যন্ত। গত কোরবানির ঈদেও যা বিক্রি হয়েছে ২৪০০-২৬০০ টাকায়।ঈদের আগে অন্যান্য মসলার দামও বাড়তি বলে জানান রাশেদ। তিনি বলেন, মূলত ডলার সংকট ও দাম বেড়ে যাওয়ায় মসলার বাজার ঊর্ধমুখী।

কেরানীগঞ্জের জিনজিরা বাজারের ব্যবসায়ী ইউসুফ বলেন,
কয়েকদিন বাদে ঈদ। এতে বাজারে ক্রেতার চাপ ও চাহিদা বেড়েছে। তাই মসলার দাম বেড়েছে।

বাজারে দারুচিনি ৫০০ থেকে ৫৫০ টাকা, জিরা ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, এলাচ প্রকারভেদে ৩২০০ থেকে ৪০০০ টাকা, সাদা গোলমরিচ ১৪০০ টাকা, কালো গোলমরিচ ৯০০ থেকে ১ হাজার টাকা, লবঙ্গ ১৬০০ থেকে ১৬৫০ টাকা ও তেজপাতা ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।আর দেশি শুকনো মরিচ মানভেদে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা, ইন্ডিয়ান শুকনা মরিচ ৩৮০ থেকে ৪২০ টাকা, আলুবোখারা ৯৫০ টাকা, কাজুবাদাম ১২৫০ থেকে ১৩০০ টাকা, কাঠবাদাম ১১০০ থেকে ১২০০ টাকা, হলুদ ২৮০ থেকে ৩৫০ টাকা, পাঁচফোড়ন ১৮০ থেকে ২০০ টাকা ও ধনিয়া ২২০ থেকে ২৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারে আদা, রসুন ও পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। খুচরা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ টাকা, প্রতি কেজি ১০-২০ টাকা বেড়েছে। পাইকারি দাম ৭৫-৮০ টাকা।
এছাড়া কেজিতে ২০-৩০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে প্রতি কেজি দেশি রসুন ২৩০-২৪০ টাকা, আর আমদানি করা রসুন বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকায়। এছাড়া কেজিতে ২০-৪০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে আদা বিক্রি হচ্ছে ২৬০-২৮০ টাকায়।


 

Link copied!

সর্বশেষ :