বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

গো-খাদ্যের দাম কেমন কোরবানির বাজারে?

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২৪, ০১:২৩ পিএম

গো-খাদ্যের দাম কেমন কোরবানির বাজারে?

কোরবানির ঈদকে ঘিরে চাহিদা বেড়েছে গো-খাদ্যের।

 রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে জমে ওঠেছে কোরবানির পশুর হাট। পশু বেচাকেনার পাশাপাশি চলছে গো-খাদ্যের বেচাবিক্রিও।কোরবানির ঈদের বাকি আর মাত্র দুদিন। এরই মধ্যে পশু কিনেছেন অনেকে। আবার অনেকে বিভিন্ন হাট ঘুরে এখনও দেখছেন, দরদাম করছেন। যারা পশু কিনেছেন, তারা কোরবানির আগ পর্যন্ত গরুকে লালন-পালনের জন্য কিনছেন গো-খাদ্যও।

এতে গরুর হাটের পাশাপাশি জমে উঠছে গো-খাদ্যের বাজারও। সরজমিনে কেরানীগঞ্জের জিনজিরা, আগানগর ও আমবাগিচা হাট ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি হাটে নির্দিষ্ট দূরত্ব পর পর বসেছে গো-খাদ্যের অস্থায়ী দোকান।বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বুটের ভুসি প্রতি কেজি ৭০-৮০ টাকা, গমের ভুসি ৫০-৬০ টাকা, গমের ছাটাই ৭০ টাকা, ক্ষুদ ৬০ টাকা ও কুড়া বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকায়। এছাড়া ডাবলি ৮০ টাকা, ভুট্টা ৫০ টাকা, কালাই ৭০ টাকা ও খড় ২০-৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।কেরানীগঞ্জের আমবাগিচা হাটে গো-খাদ্য বিক্রি করা রোকসানা জানান, গরু কিনে বাড়ি ফেরার পথে গরুর খাবার কিনছেন ক্রেতারা। হাট যত জমে উঠবে, গরুর খাবারের বেচাবিক্রিও তত বাড়বে।

আরেক বিক্রেতা শামিম জানান, এখন পুরোদমে হাট জমে ওঠেনি। তাই এখনও আশানুরূপ বেচাবিক্রি হচ্ছে না। তবে আজ (শুক্রবার) বিকেল থেকে গরু বেচাকেনা বাড়লে, গো-খাদ্যের বিক্রিও বাড়বে।আর ক্রেতারা জানান, আগে গরু কিনলে সেটি বাড়িতে নিয়ে লালন-পালন করতে হয়; এ জন্য খাবার দরকার। তাই গরু কেনার পর গো-খাদ্যও কিনতে হয়।গতবছরের তুলনায় এবার গো-খাদ্যের দাম বেড়েছে জানিয়ে হালিম নামে এক ক্রেতা বলেন, গতবছর খড়ের কেজি ২০ টাকার মধ্যে থাকলেও এবার সেটি ৩০ টাকা পর্যন্ত দাম চাচ্ছে।
এদিকে, কেরানীগঞ্জের আমবাগিচা হাটের ইজারাদার কমিটির সদস্য মো. শাওন জানান, ট্রলারে ও ট্রাকে করে বিভিন্ন জেলা থেকে গরু আসছে। বেচাকেনা এখনও তেমন জমে না উঠলে শুক্রবার বিকেলের পর থেকে ভিড় বাড়বে।

Link copied!

সর্বশেষ :