বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২৪, ১১:০০ পিএম

বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপে  পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ

অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপ বিনিয়োগ কমেছে

সম্প্রতি প্রকাশিত স্টার্টআপব্লিঙ্ক রিপোর্ট অনুযায়ী, স্টার্টআপ উদ্যোগের ক্ষেত্রে শীর্ষ 150টি শহরের মধ্যে ঢাকা স্থান পেয়েছে। 1000 শহরের মধ্যে ঢাকা 140 তম স্থানে রয়েছে। 

দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের তালিকায় ভারতীয় শহরগুলির আধিপত্য থাকলেও ঢাকা তাদের মধ্যে অষ্টম স্থানে রয়েছে। উপরন্তু, ঢাকা কৃষি উদ্যোক্তা আবেদনের শহরগুলির তালিকায় অষ্টম স্থানে রয়েছে। এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের 19টি দেশে প্রায় 159টি স্টার্ট-আপ অর্থনীতি রয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৮তম। 

কিরগিজস্তানের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ। এই বছর, সফ্টওয়্যার এবং ডেটা-ভিত্তিক স্টার্টআপগুলি এই ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিচ্ছে। এটি ই-কমার্স এবং খুচরা, স্বাস্থ্য, অর্থ এবং শিক্ষার স্টার্ট-আপগুলির দ্বারা অনুসরণ করে৷ 

বাংলাদেশের শীর্ষ স্টার্টআপগুলির মধ্যে স্থান দেওয়া হয়েছে। 

পাঠাও, 

শপআপ, 

সহজ, 

আরোগ্য 

এবং 10 মিনিট স্কুলকে

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, "বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি জনবহুল দেশ, ভারত ও মায়ানমার সীমান্তবর্তী। জনসংখ্যার আকার এবং একটি বিশাল দেশীয় ভোক্তা বাজারের অন্তর্নিহিত সুবিধা রয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘তবে বাস্তুতন্ত্রটি চ্যালেঞ্জ ছাড়া নয়। প্রধান শহরের বাইরে হাই-স্পিড ইন্টারনেটের সুবিধা না থাকা, অর্থায়নের সুযোগ সীমিত হওয়া, জটিল নিয়ম-কানুন এবং বিশ্বব্যাপী পরিচিতি সীমিত থাকা এই বাস্তুতন্ত্রের সম্পূর্ণ সম্ভাবনা অর্জনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে... দেশটির শক্তিশালী অর্থনৈতিক সম্ভাবনা রয়েছে, যা বাস্তবায়নের জন্য সরকারের আরও সহায়তা প্রয়োজন। 

স্টার্টআপের প্রবৃদ্ধি সমর্থন করার জন্য সরকারের উচিত ইন্টারনেট অবকাঠামো উন্নত করা, কর্পোরেট ভেঞ্চার ক্যাপিটালের ব্যবস্থা করা, স্টার্টআপ-বান্ধব নীতিমালা ও বিধি প্রতিষ্ঠা এবং শিল্প-শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সহযোগিতা উন্নত করা।’

স্টার্টআপব্লিঙ্কের প্রতিবেদন সম্পর্কে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইক্যুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ভিসিপিইএবি) এবং ই-জেনারেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম আহসান বলেন, মান ও বিনিয়োগ স্টার্টআপের জন্য বড় সমস্যা।

 দক্ষিণ এশিয়ার অধিকাংশ বিনিয়োগ ভারতে যায়, পাকিস্তান মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক বিনিয়োগ উপভোগ করে, যেখানে বাংলাদেশ এই অঞ্চল-ভিত্তিক ফোরামের কোনো সুবিধা ভোগ করে না, এবং সেক্ষেত্রে আরও স্থানীয় বিনিয়োগ সহায়তা প্রয়োজন।

র‍্যাঙ্কিংয়ে পিছিয়ে পড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, হয়তো বাংলাদেশের হালনাগাদ তথ্য ঠিকভাবে ওই প্রতিষ্ঠানের কাছে পৌঁছায়নি এবং বাংলাদেশ ভিত্তিক স্টার্টআপগুলোরও সঠিক তথ্য নিয়ে বিশ্বের সামনে নিজেদের উপস্থাপন করার ক্ষেত্রে দুর্বলতা রয়েছে।

স্টার্টআপ মন্দা অব্যাহত

লাইটক্যাসল পার্টনার্স, একটি স্থানীয় কনসালটেন্সি ফার্ম, নিয়মিতভাবে বাংলাদেশের স্টার্টআপ খাত সম্পর্কে পর্যালোচনা ও প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তারা ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে স্টার্টআপ বিনিয়োগ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে বাংলাদেশের স্টার্টআপগুলো প্রায় ৭ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ পেয়েছে, যা গত বছরের চতুর্থ প্রান্তিকের তুলনায় ৭০ শতাংশ কম। এবং ২০২৪ সালে পাওয়া অর্থায়নের ৭৫ শতাংশই এসেছে বিদেশ থেকে।

২০২৩ সালে গত বছরের শেষ প্রান্তিক (অক্টোবর-ডিসেম্বর) বাদে বাংলাদেশে প্রতি ত্রৈমাসিক বিনিয়োগ ১০ মিলিয়ন ডলারের নিচে ছিল।

স্টার্টআপব্লিঙ্কের মতে, অর্থনৈতিক মন্দা ও মুদ্রাস্ফীতির কারণে ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকে বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপ তহবিল ২০১৮ সালের পর থেকে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছেছে।

বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপ তহবিল ২০২১ সাল থেকে ক্রমাগত হ্রাস পাচ্ছে। ২০২৩ সালে বিনিয়োগের মাত্রা পাঁচ বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছেছে, এবং এই নিম্নমুখী প্রবণতা ২০২৪ সালের প্রথম প্রান্তিকেও কোনো উল্টো চিত্র দেখায়নি।

স্টার্টআপব্লিঙ্কের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বিশ্বব্যাপী স্টার্টআপ বিনিয়োগ কমেছে এবং এআই-এর উত্থানের ফলে আইটি ও স্টার্টআপ খাতে কর্মী ছাঁটাইয়ের প্রবণতা বেড়েছে।’

চলতি বছরের প্রথম সাড়ে চার মাসে বিশ্বব্যাপী আইটি খাতে ৭৫,০০০ এর বেশি মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। অর্থনৈতিক সংকটের পাশাপাশি গুগল, মেটা ও মাইক্রোসফটের মতো বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোও তাদের কর্মী সংখ্যা কমাতে এআই ব্যবহার শুরু করেছে।

তবে আশার কথা হলো, বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মী ছাঁটাইয়ের ফলে অনেক প্রতিভাবান প্রযুক্তিবিদ নিজস্ব স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠা করতে উদ্বুদ্ধ হতে পারেন। এতে করে বর্তমান সংকটকালে স্টার্টআপ খাতে নতুন উদ্যোগ দেখা দিতে পারে। 

স্মরণ করা যেতে পারে যে, ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দার সময় এয়ারবিএনবি, উবার ও ইন্সটাগ্রামের মতো সফল স্টার্টআপগুলোর জন্ম হয়েছিল।

Link copied!

সর্বশেষ :