বাংলাদেশ শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

নববর্ষ উপলক্ষে সারাদেশে পহেলা বৈশাখ পালিত হয়

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৪, ২০২৪, ০৫:২০ পিএম

নববর্ষ উপলক্ষে সারাদেশে পহেলা বৈশাখ পালিত হয়

পহেলা বৈশাখ ১৪৩১

আজ পহেলা বিশেক। বাংলা ক্যালেন্ডারে যুক্ত হয়েছে বাংলা নববর্ষ “1431”। অতীতের ভুল ও ব্যর্থতার দুঃখ ভুলে নতুন সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় রোববার (১৪ এপ্রিল) বর্ণাঢ্য উৎসবে ধর্ম, শ্রেণী-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেয়।নতুন বছর মানে নতুন সম্ভাবনা। একটি নতুন বছরে, একটি নতুন দিনে, সমস্ত বাধা অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আরেকটি বাণী দিয়েছেন। সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারা প্রত্যেকেই তাদের বার্তা দিয়ে জনগণকে অভিনন্দন জানান এবং দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।রাষ্ট্রপতি বলেন, বৈশাখ শুধু উৎসবের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। সাহাবুদ্দিন তার বার্তায় বলেন, আত্ম-উন্নতি ও বৃদ্ধির জন্য আমাদের প্রেরণা এই বিষয়ের সাথে জড়িত। বাঙালি সংস্কৃতি, জাতীয় স্বায়ত্তশাসন ও স্বাধীনতার বিকাশে এটি একটি অবিনশ্বর শক্তি।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার নববর্ষের ভাষণে বলেছেন, বাঙালি ঐতিহ্যে পহেলা বৈশাখের একটি বিশেষ স্থান রয়েছে। এটি চরমপন্থা, মৌলবাদ, চরমপন্থা, সন্ত্রাসবাদ ও স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উদ্বুদ্ধ করবে। এই নববর্ষ উদযাপন আমাদের শিকড়ের চিহ্ন দেয় এবং এর মাধ্যমে আমরা আমাদের জাতীয় পরিচয় খুঁজে পেতে পারি।বাংলা নববর্ষ উদযাপনের জন্য সারাদেশকে ঘিরে রাজধানী ঢাকা ছিল সকাল থেকেই মুখরিত।

আজ রমনার সূর্যোদয়ের মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে চীনা নববর্ষ। এই অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য ছিল মানুষ ও মানবতার উদযাপন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা কলেজের শিল্পী ও শিক্ষার্থীরা ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’র আয়োজন করে। সকাল ৯টায় এই মিছিল শুরু হয়। “এমলা ও তিমির বিনাসি” থিম নিয়ে চারুকলা অনুষদের সামনে। পরে মিছিলটি শাহবাগ মোড় থেকে রমনা টেনিস কমপ্লেক্স, শিশুপার্ক মোড়, টিএসসি চত্বর হয়ে চারুকলা অনুষদের সামনে এসে পৌঁছায়।
এছাড়াও প্রতি বছরের মতো এবারও বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে শেরে বাংলায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সামনে একটি কনসার্টের আয়োজন করা হবে, যাতে অংশ নেবেন হাজার হাজার শিল্পী। বিখ্যাত শিল্পী রবীন্দ্রসংগীত রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার নেতৃত্বে ‘হাজার কান্তে বর্ষবরণ’ অনুষ্ঠানে হাজার হাজার শিল্পী অংশ নিচ্ছেন। আর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যৌথ সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে “মুশে যাক গ্লানি, গুচে জাক জারা, শুচি হক ধানা” প্রতিপাদ্যে পালিত হবে নববর্ষের অনুষ্ঠান। এবারের নববর্ষের অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে দলীয় ও একক সঙ্গীত, কবিতা, নৃত্য, পাঠ, পথনাটক ইত্যাদি।

এসব অনুষ্ঠানের পাশাপাশি রাজধানীতে দিনব্যাপী চলবে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সংগঠনের আয়োজনে নববর্ষ উদযাপন। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি চ্যানেলে দিনভর নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হলেও এবার ঈদের কারণে পত্রিকায় কোটি কোটি প্রকাশের সুযোগ নেই।বাংলা নববর্ষে, সমস্ত কারাগার, হাসপাতাল এবং শিশু পরিবারে (এতিমখানা) উন্নতমানের ঐতিহ্যবাহী বাঙালি খাবারের আয়োজন করা হয়।

অন্যান্য সময়ের মতো এবারও পহেলা বৈশাখ একটি উৎসব। যাইহোক, এটি ঈদুল আযহার সাথে একই সময়ে পড়ানো হয় বলে এই ছুটিতে কিছু পার্থক্য ছিল। কারণ এই ছুটিতে অনেকেই বাড়িতে থাকেন। ফলে এই আনন্দ এখন গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়ছে।

Link copied!

সর্বশেষ :