বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

মুক্তির পর এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের নাবিকেরা স্বজনদের কাছে ফিরেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: মে ১৫, ২০২৪, ১০:৫৪ এএম

মুক্তির পর এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের নাবিকেরা স্বজনদের কাছে ফিরেছে

এমভি আবদুল্লাহর ক্যাপ্টেন আব্দুল রশিদ।

এক মাস ভারত মহাসাগরে বন্দিদশা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর ‘আব্দুল্লাহ’ জাহাজের ২৩ জন নাবিক তাদের স্বজনদের কাছে ফিরেছে। তাদের পরিবারের সদস্য ও প্রিয়জনরা তাদের প্রিয়জনের ফিরে আসার অভিজ্ঞতা অনুভব করছেন।

এই বছরের ৪ মার্চ যাত্রা শুরু করার এক সপ্তাহ পরে ১২ মার্চ জলদস্যুদের হাতে নাবিকদের আটক করা হয়েছিল। ১৪ই মে বিকেলে চট্টগ্রামেরনিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনালে নাবিকরা প্রবেশ করার সময় তারা বলেছিল যে তারা পুনর্জন্ম অনুভব করেছে।

“আমি ভাবতাম আমি কখনই আমার কলিজার টুকরো ফিরে পাব না। কিন্তু আল্লাহর উপর ভরসা ছিল। মহাবিপদ থেকে মুক্ত হয়ে মায়ের বুকে ফিরে এলো। আমি প্রার্থনা করি যেন কারও পরিবার এমন পরিস্থিতিতে না পড়ে,” বলেন জাহাজের ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার তানভীর আহমেদ এর মা জোসনা বেগম।

প্রথম সংবাদ জাহাজের ফোর্থ ইঞ্জিনিয়ার তানভীর আহমেদের মা জোসনা বেগমের সাথে যখন কথা হয়, তখন তিনি জাহাজের ভেড়ার জন্য জেটিতে অপেক্ষা করছিলেন। তিনি তার ছেলেকে জাহাজের ডেকে ততক্ষণে দেখতে পেলেন।

তখন উচ্ছ্বাস তার গলায়, তিনি বলেছিলেন: "সে আমার দিকে হাত নাড়ছে, আমি মনে করি আমার জীবনে এর চেয়ে ভাল দিন আগে কখনো আসে নাই।"

জিম্মি থেকে মুক্তি পাওয়া নাবিকদের অনেক আত্মীয় তাদের প্রিয়জনকে স্বাগত জানাতে ঘাটে হাজির হয়েছিল। পরিবারগুলি নাবিকদের মুক্তির অধীর অপেক্ষায় ছিল। এমভি জাহান মুনি বন্দরে আসার পর নাবিকদের স্বজনরা তাদের প্রিয়জনকে কেক ও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

বাবার আগমনের খবর শুনে দুপুর আড়াইটার দিকে ছোট্ট ইয়াশরা ও উনাইজা চাচার সঙ্গে বন্দর এলাকায় আসেন। তারা রঙিন ফুল দিয়ে জীবনের একটি রঙিন দিনের কথা মনে রাখতে চায়। দুই মেয়ে তাদের বাবাকে ফুল দিয়ে বরণ করছে। আতিকুল্লাহ খান জাহাজ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে তিনি দুই মেয়েকে শক্ত করে বুকে জড়িয়ে ধরেন। আর মেয়েরা বাবার গালে ও মুখে ভালোবাসার চিহ্ন আঁকে। উপস্থিত অনেকেই এ দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হন। আতিকুল্লাহ খান বলেছেন ‍‍`এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম।’

এ সময় নাবিকদের আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও জাহাজটির মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ও বন্দর কর্তৃপক্ষ উপস্থিত ছিলেন।

এমভি আবদুল্লাহর ক্যাপ্টেন আব্দুল রশিদ বলেন, “আমি ২৩ জন নাবিককে আগলে রেখেছি কারণ আমি বিশ্বাস করি তারা একটি জটিল পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসবে। জাহাজের ক্ষতি মেনে নেওয়া গেলেও মানুষের প্রাণহানি কোনোভাবেই পুষিয়ে নেওয়া যায় না। এই কারণেই আমি সর্বদা দস্যুদের হাত থেকে পুরো নিরাপদে রাখার কথা ভাবতাম। "

জিম্মি অবস্থা থেকে মুক্তি পাওয়া আরেক নাবিক বলেছেন: “আমি দীর্ঘদিন ধরে এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করছিলাম। আমি আমার পরিবারের কাছে ফিরে যেতে পারব কিনা তা নিয়ে চিন্তিত ছিলাম। অবশেষে বাড়ি ফিরলাম। আমি দূর থেকে আমার পরিবারের সদস্যদের দেখছি। আমার মনে হচ্ছে আমি আবার জন্মগ্রহণ করেছি।

এইভাবে, দীর্ঘ অপেক্ষার পালা শেষ হলো ২৩ নাবিক ও পরিবারের।

Link copied!

সর্বশেষ :