বাংলাদেশ শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

টাঙ্গাইলে ১০ টাকায় রমজানের বাজার

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: মার্চ ১১, ২০২৪, ০৭:৪৮ পিএম

টাঙ্গাইলে ১০ টাকায় রমজানের বাজার

রমজান উপলক্ষে টাঙ্গাইলে মাত্র ১০ টাকা করে চাল, তেল, ডালসহ ছয় প্রকার নিত্য পণ্য ক্রয় করেছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।সোমবার (১১ মার্চ) দুপুরে টাঙ্গাইল জেলা সদরের বস্তিতে শতাধিক পরিবারকে ১০ টাকার বিনিময়ে রোজার বাজার দেয় শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশন। নামমাত্র মূল্যে এসব পণ্য কিনতে পেরে খুশি সুবিধাভোগীরা।

জানা যায়, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে সুবিধা বঞ্চিত ও নিম্ন আয়ের মানুষকে স্বস্তি দিতে রমজান উপলক্ষে মাত্র ১০ টাকায় পণ্য বিক্রি করার উদ্যোগ নেয় শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশন। এখান থেকে ১০ টাকা করে মোট ছয়টি পণ্য কেনার সুযোগ পায় একটি পরিবার। এর মধ্যে এক কেজি চাল, আধা কেজি ডাল, আধা লিটার সয়াবিন তেল, মুড়ি এক কেজি, ছোলা আধা কেজি ও পেঁয়াজ আধা কেজি। যার বাজার মূল্য প্রায় ৩৯০ টাকা। কিন্তু ক্রেতারা মাত্র ৬০ টাকা দিয়েই ছয়টি পণ্য কিনতে পেরেছেন।সামিয়া আক্তার নামের এক সুবিধাভোগী বলেন, “বাজার থেকে বেশি দাম দিয়ে এতোগুলো পণ্য আমরা কিনতে পারতাম না। রমজান উপলক্ষে কম দামে পণ্য কিনতে পেরে আমরা খুশি। এতে আমাদের অনেক উপকার হয়েছে।”

তাসলিমা আক্তার নামের আরেকজন বলেন, “বর্তমানে বাজারে সব কিছুর দাম বেশি। এই পরিস্থিতে আমরা ৬০ টাকা দিয়ে ছয়টি পণ্য নিতে পেরেছি এতে আমাদের অনেক উপকার হলো। স্বামী সন্তান নিয়ে কিছুদিন ভালোভাবে রোজা করতে পারব। আয়োজকদের কাছে দাবি এমন আয়োজন মাঝে মাঝে করা হোক। আমরা অসহায় মানুষরা ভালোভাবে বাঁচতে পারব।”শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশনের সদস্য আহসান হাবিব বলেন, “আমি চার বছর ধরে এ সংগঠনের সঙ্গে রয়েছি। লেখাপড়ার পাশাপাশি আমরা এ কাজে নিয়োজিত রয়েছি। নিম্ন আয়ের মানুষের তৃপ্তি দেখে আমরাও খুশি। রোজার সময় ইফতারের আয়োজন করা হবে।”

এ ব্যাপারে শিশুদের জন্য ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা মুঈদ হাসান তড়িৎ বলেন, “বর্তমান সময়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম অনেক বেশি। রোজার মধ্যে এর দাম কয়েকগুণ বেড়ে যায়। রমজান মাসে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট কিছুটা লাঘব করার জন্য এমন আয়োজন করা হয়েছে। ভবিষ্যতে বড় পরিসরে এমন আয়োজন করা হবে। ঈদ উপলক্ষে ১০ টাকার মূল্যে ঈদ বাজারের আয়োজন করার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।”মুঈদ হাসান আরও বলেন, “সমাজের বিত্তবানরা সুবিধাবঞ্চিত ও নিম্ন আয়ের মানুষের পাশে এগিয়ে এলে দরিদ্র এসব মানুষের খাবারের অভাব হবে না। আমাদের এ কার্যক্রম চলমান থাকবে। আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে এ কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে।”

Link copied!

সর্বশেষ :