বাংলাদেশ সোমবার, ২২ জুলাই, ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১

মূল্যবৃদ্ধির কারণে মানুষ পুষ্টিকর খাবার কাটছাঁট করছেন: আনু মুহাম্মদ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: মার্চ ২৯, ২০২৪, ১১:৩৮ পিএম

মূল্যবৃদ্ধির কারণে মানুষ পুষ্টিকর খাবার কাটছাঁট করছেন: আনু মুহাম্মদ

রাজধানীর শাহবাগে আজ শুক্রবার বিকেলে নাগরিক সমাবেশে বক্তব্য দেন অর্থনীতির অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। ছবি: দৈনিক প্রথম সংবাদ

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেছেন, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে দেশের বড় অংশের মানুষের প্রকৃত আয় কমে যাচ্ছে। তার ফলে অনেকে চিকিৎসা খরচ মেটাতে পারছেন না। প্রতিদিনের খাবারের খরচে একটু একটু করে বাদ যাচ্ছে। পুষ্টিকর খাবারের জায়গায় আরেকটা খাবার ঢুকছে। প্রকৃত আয় কমায় আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটছে।

আজ শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে এক নাগরিক সমাবেশে অর্থনীতির অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ এসব কথা বলেন। নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতি ও দফায় দফায় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এই নাগরিক সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

স্বল্প আয়ের মানুষের দুরবস্থার জন্য নিত্যপণ্যের মূলবৃদ্ধি ছাড়াও চাঁদাবাজিকে দায়ী করেছেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। তিনি বলেছেন, চায়ের দোকান বা হকার, ভ্যানগাড়ি নিয়ে চলে—তাদের চাঁদা দিতে হয় নিয়মিত। যার পরিমাণ শতকোটি টাকা। ছাত্রলীগ, আওয়ামী লীগের মতো ক্ষমতাসীন সংগঠন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মতো প্রশাসন এসবের সুবিধাভোগী।

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির বেশ কিছু কারণের কথা উল্লেখ করেন আনু মুহাম্মদ। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর থেকেই নিত্যপণ্যের দাম বাড়তে শুরু করেছে। কয়েকটা কোম্পানি একচেটিয়াভাবে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছে। বাংলাদেশের মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির এটা বড় কারণ।

আনু মুহাম্মদ বলেন, জিনিসপত্রের দাম তো বাড়তেই পারে, উৎপাদন খরচ বাড়লে এবং চাহিদা বাড়লে জিনিসপত্রের দাম বাড়তেই পারে। সবজি থেকে কোনো কিছুর সরবরাহে সমস্যা নেই। তারপরও দাম বেড়ে যাচ্ছে। কতিপয় গোষ্ঠী বা চোরের হস্ত হচ্ছে প্রধান কারণ। উৎপাদন বা বিতরণ—কোনো কাজে না থেকে একটা বড় গোষ্ঠী দ্রুত টাকা বানাচ্ছে। দেশের চাল, ডাল, তেল, আটা, পেঁয়াজের ব্যবসা মুষ্টিমেয় লোকের হাতে চলে গেছে বলে মন্তব্য করেন সাংবাদিক আবু সাঈদ খানও।

সমাবেশে বক্তব্যে কৃষি খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর দাবি জানান উন্নয়ন অর্থনীতিবিষয়ক গবেষক মাহা মির্জা। তিনি বলেন, দেশের কৃষি বাজেট যেখানে ১৬ হাজার কোটি টাকা, সেখানে খেলাপি ঋণের পরিমাণ এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। অর্থাৎ দেশের যেসব শিল্পপতি কারখানা করবেন বলে ঋণ নিয়েছিলেন, তাঁরা ঋণ শোধ করার প্রয়োজন মনে করেননি। এতে তাঁদের বিশেষ কোনো সমস্যা হচ্ছে না। অথচ ফেসবুকে কিছু লিখতে গেলে তা অনেক বড় অপরাধ হিসেবে দেখে সরকার।

গণতান্ত্রিক ছাত্র জোটের সমন্বয়ক অঙ্কন চাকমার সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে অধ্যাপক হারুন-অর-রশিদ সমাবেশে বক্তব্য দেন। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক তানজিম উদ্দিন খান, বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলন কেন্দ্রীয় ফোরামের সমন্বয়ক শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, বাসদের (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক মাসুদ রানা প্রমুখ সমাবেশে সংহতি জানান।

Link copied!

সর্বশেষ :