বাংলাদেশ সোমবার, ২২ জুলাই, ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১

রাজধানীতে ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো পারাপার

দৈনিক প্রথম সংবাদ ডেস্ক

প্রকাশিত: মার্চ ৯, ২০২৪, ১১:২৫ পিএম

রাজধানীতে ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো পারাপার

সংগৃহীত ছবি

রাজধানীর ডেমরার পার্শ্ববর্তী রামপুরা-আফতাবনগর ও বনশ্রী-মেরাদিয়া এলাকার লাখ লাখ মানুষ দেড় যুগ ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো পারপার হচ্ছে। নড়াই নদের পানিও দুর্গন্ধযুক্ত। শিক্ষার্থী ও নানা বয়সী মানুষ আতঙ্কের মধ্য দিয়ে নদটি পারাপার হন। নদের ওপর সেতু নির্মাণের দাবি ভুক্তভোগীদের।

সরেজমিন দেখা গেছে, শহরের বুক চির বয়ে চলা নড়াই নদ ঢাকা সিটি করপোরেশনকে এখানে দুই ভাগে বিভক্ত করেছে। একদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের জনবহুল ইস্টার্ন হাউজিং এলাকা আফতাবনগর, অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে আধুনিকভাবে গড়ে ওঠা শহরের অন্যতম ব্যস্ত এলাকা বনশ্রী-মেরাদিয়া।

 

এদিকে মেরাদিয়া বাজার ও বাঁশপট্টি সংলগ্ন এলাকায় নড়াই নদের ওপর নির্মিত বাঁশের সাঁকো পূর্ব আফতাবনগরের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করেছে। এ সাঁকো দিয়ে পূর্ব আফতাবনগর, দীতপূরা, বেরাইদ, রূপগঞ্জ, ডেমরা, মান্ডা, নাসিরাবাদসহ আশপাশের লোকজনের সহজে যাতায়াতের একমাত্র সেতু এটি।

এ ছাড়া মেরাদিয়া বাজার এলাকায় ফলপট্টি সংলগ্ন বাঁশের সাঁকোটি নড়াই নদের ওপারে আফতাবনগর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩ নম্বরের শেষ সীমানায় অবস্থিত। জি-ব্লকের সামনে এবং আইডিয়াল কলেজ বনশ্রী শাখা, বনশ্রী কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে অধিক গুরুত্বপূর্ণ দুটি সাঁকো রয়েছে। এসব সাঁকো দিয়ে জরুরি প্রয়োজনে প্রতিদিন লক্ষাধিক মানুষ চলাচল করছে। এর মধ্যে স্কুল-কলেজপড়ুয়া ছাত্রছাত্রী এবং জরুরি চিকিৎসাসেবা নেওয়ার জন্য ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো ব্যবহার করছে বেশিরভাগ মানুষ। এ কারণেই সাধারণ মানুষের চাহিদার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে নড়াই নদের দক্ষিণ পাড়ে বনশ্রী-মেরাদিয়া এলাকা। বনশ্রী-মেরাদিয়ার সঙ্গে আফতাবনগরসহ আশপাশের এলাকার সাধারণ মানুষের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে রামপুরা-ডেমরা সড়কের পাশে নড়াই নদের ওপর নির্মিত বাঁশের সাঁকো।

আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র হামিমের মা আফতাবনগরের বাসিন্দা খাদিজা আক্তার রীনা বলেন, ছেলেকে নিয়ে প্রতিদিন কয়েকবার স্কুলে আসা-যাওয়া করতে হয়। আফতাবনগর এলাকায় তেমন ভালো কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই। এ ছাড়া যে কয়েকটি আছে, তা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। এ কারণেই ওপার থেকে প্রচুরসংখ্যক শিক্ষার্থী ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে এপারে আসছেন।

ষাটোর্ধ্ব মো. রিয়াজ বলেন, আমার পেটে সমস্যা; তাই ডাক্তার দেখাতে আমি ফরাজী হাসপাতালে আসি; কিন্তু ডাক্তার আমাকে বিভিন্ন পরীক্ষা দিয়েছেন। বেশ কয়েকবার এসেছি হয়তো আরও একাধিকবার আসতে হবে। অনেক ভয় হয় এ সাঁকো দিয়ে পারাপারে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদ হোসেন মহসীন বলেন, মেরাদিয়া, বনশ্রী-জি ব্লক ও আঙ্গরজোড়ায় তিনটি বাঁশের সাঁকো আমার ওয়ার্ডে অবস্থিত। এসব সাঁকো দিয়ে দৈনিক বিপুলসংখ্যক মানুষ যাতায়াত করে। এখানে সেতু খুবই জরুরি। মেরাদিয়া বাজারসংলগ্ন একটি সেতু নির্মাণের কথা রয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসির) বাড্ডা-মেরাদিয়া এলাকার প্রকৌশল বিভাগের প্রধান সাইফুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। দুপাশের মানুষের সুবিধার কথা চিন্তা করে নদীর ওপর দুটি সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে ডিএসসিসির।

Link copied!

সর্বশেষ :